logo

শুক্রবার ১৬ই এপ্রিল, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ - ৩রা বৈশাখ, ১৪২৮ - ৩রা রমজান, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনাম

বোয়ালখালীতে দোকান ও জায়গা দখলে নিতে রাতের আধারে ভাঙচুর
২২ জানুয়ারি, ২০২১

বোয়ালখালী উপজেলার শাকপুরা চৌমুহনী বাজারে দোকানঘর ও জায়গা দখলে নিতে আবারও রাতের আধারে ভাঙচুর চালানো হয়েছে। ২২ জানুয়ারী রাত আনুমানিক আড়াইটার সময় এই ঘটনা ঘটে ।

ভাঙচুরের ঘটনায় জায়গার মালিক দাবীদার নুর মোহাম্মদ বাদী হয়ে বোয়ালখালী থানায় এজাহার দিয়েছেন। এজাহারে শাকপুরা ইউনিয়নের আমিন মেম্বারের বাড়ির মরহুম নুরুল হকের ছেলে মোহাম্মদ মোহরম আলী, মো.রমজান আলী, মো.কোরবান আলী মো.মাহমুদুল হক, মো.আব্দুল করিম ও আমিনুল হকের ছেলে নিজাম উদ্দিনকে আসামী করা হয়েছে।

বোয়ালখালী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোহাম্মদ আব্দুল করিম বলেন, শাকপুরা চৌমুনহনী বাজারে দোকান ভাঙচুরের ঘটনায় একপক্ষ আরেকপক্ষকে দোষারোপ করে উভয়পক্ষ থানায় এজাহার দিয়েছেন। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

জানা যায়, উপজেলার শাকপুরা চৌমুহনী বাজারে ক্রয়কৃত জায়গায় পাকা দোকানগৃহ নির্মাণ করে যুগযুগ ধরে ভোগ দখল করে আসছেন নুর মোহাম্মদের স্ত্রী রোকেয়া বেগম। ইতিপূর্বেও দোকানগুলো জবরদখলের চেষ্টা করলে রোকেয়া বেগমের স্বামী নুর মোহাম্মদ বাদি হয়ে বিজ্ঞ আদালতে মামলা নং-১৯৩/১৮ ও ৩২৮/১৮ দায়ের করেন। যাহা বিজ্ঞ আদালতে বিচারাধীন রয়েছে। বিবাদীরা বিজ্ঞ আদালতে মামলা চলমান থাকার পরও আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ৪ জানুয়ারী রাত আনুমানিক আড়াই টার সময় দোকানগৃহ ভাঙচুর করে ।

এই ঘটনায় রোকেয়া বেগমের স্বামী নুর মোহাম্মদ বাদী হয়ে পশ্চিম শাকপুরা উত্তর পাড়া আমিন মেম্বারের বাড়ীর মৃত নুরুল হকের ছেলে মোহম্মদ মহরম আলী, মোহাম্মদ রমজান আলী, মোহাম্মদ কোরবান আলী, মো. মাহমুদুল হক, মৃত আমিনুল হকের ছেলে নিজাম উদ্দিন, আনিছ তালুকদারের বাড়ীর মৃত সৈয়দ আহমদের ছেলে আবু তাহের, বোয়ালখালী পৌরসভার ৭নং ওয়ার্ডের দেলা মিয়ার পুত্র মোহাম্মদ ইব্রাহিমকে বোয়ালখালী থানায় একটি সাধারণ ডায়রী (১৪৩) লিপিবদ্ধ এবং চট্টগ্রাম চীফ জুডিসিয়াল ম্যাসিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা (নং-০১/২০২১) দায়ের করেন। এরপর বিবাদীরা জায়গাটি দখলে নেওয়ার চেষ্টা করলে নুর মোহাম্মদ এর স্ত্রী রোকেয়া বেগম বাদী হয়ে চট্টগ্রাম দক্ষিণ অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ফৌঃ কাঃ বিঃ আইনের ১৪৫ ধারামতে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের বিষয়টি বিবাদীরা জানতে পেরে মামলা তুলে নিতে বিভিন্নভাবে হুমকি দিতে থাকে। এক পর্যায়ে ২২ জানুয়ারি রাত আনুমানিক আড়াইটার সময় আবারও দোকানগৃহে ভাঙচুর চালানো হয় বলে জানান নুর মোহাম্মদ।

বাদী নুর মোহাম্মদ বলেন, বিবাদীরা রাতের আধারে আমাদের দোকানগৃহ জোরপূর্বক দখলে নেওয়ার অপচেষ্টা চালিয়েছে। ইতিপূর্বেও দখলের চেষ্টা চালালে বিজ্ঞ আদালতে পৃথক দু’টি মামলা দায়ের করি। আদালতকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে ৪ জানুয়ারী রাতের আধারে আবারো দোকানগৃহ ভাংচুর করে এবং একইভাবে ২২ জানুয়ারি রাতেও জায়গাটি দখলে নিতে ভাঙচুর চালায় বিবাদীরা।

এদিকে দোকানগৃহ ভাঙচুরের ছবি তুলতে গেলে গণমাধ্যম কর্মীদের ছবি ধারণ করতে দেয়নি মামলার ১নং আসামী মো.মোহরম আলী। ঘটনাটি নিয়ে নিউজ করলে এবং বেশি বাড়াবাড়ি করলে সংবাদকর্মীদের হাত-পা কেটে ফেলারও হুমকি দেওয়া হয়। গণমাধ্যম কর্মীদের পেশাগত কাজে বাধা ও প্রাণনাশের হুমকির প্রতিবাদ জানিয়েছেন বোয়ালখালীতে কর্মরত সাংবাদিকেরা।

সর্বশেষ খবর

আরো খবর

আজকের সংবাদের প্রচারিত কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by SaraBpo