logo

মঙ্গলবার ১৯শে জানুয়ারি, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ - ৫ই মাঘ, ১৪২৭ - ৫ই জমাদিউস সানি, ১৪৪২ হিজরি

শিরোনাম

চাঁদা না পেয়ে ঘর ভাংচুর,হামলায় কেয়ারটেকার আহত
৭ নভেম্বর, ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক: নগরীর বায়েজিদ লিংক রোডে চাঁদা দাবি করে না পেয়ে জায়গা দখল করতে গিয়ে  জনতার ধাওয়া খেয়ে পালিয়েছে আল আমিনের নেতৃত্বে একটি চক্র। শনিবার (৭ নভেম্বর) সকালে বায়েজিদ ছিন্নমূল এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এতে আল আমিনদের হামলায় কেয়ারটেকার আহত হয়েছে। আহত কেয়ারটেকারকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এ বিষয়ে জায়গার মালিক মঞ্জুরুল আলম বায়েজিদ থানায় একটি  অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বায়েজিদ থানার ছিন্নমূল এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী আল আমিনের নেতৃত্বে একটি সংঘবদ্ধ চক্র  মঞ্জুরুল আলমের মালিকানাধীন ১৩ গন্ডা জায়গা দখল করার জন্য চেষ্টা করে আসছেন। না হলে তাদেরকে চাঁদা দিতে হবে জানিয়ে নানা ধরণের ভয়ভীতি ও হুমকি দিয়ে আসছেন। তাদের দাবি অনুযায়ী কাজ না করার কারণে শনিবার আল আমিন তার লোকজন নিয়ে জায়গা দখল করতে যান। এসময় সেখানে থাকা কেয়ারটেকার তাদের বাঁধা দিলে তাকে মেরে জখম করে গুরুতর আহত করে। স্থানীয়রা খবর পেয়ে এগিয়ে আসলে তারা পালিয়ে যান। পরে স্থানীয়রা উদ্ধার করে কেয়ারটেকারকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। বর্তমানে সে চমেকে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

আল আমিনের নেতৃত্বে ১০-১২ জন এসে ২টি ঘর ভেঙ্গে ফেলে। এসময় কেয়ারটেকার বাধা দিতে গেলে তাকে এলোপাতারি কিল, গুসি লাথি মেরে দা দিয়ে তার শরীরে আঘাত করে।

স্থানীয় একব্যক্তি জানান, ছিন্নমূলের সাঃ সম্পাদক মশিউর রহমান, সাদেক, মিজানুল কাদের, রনি ও সুজন বড়ুয়া নামে পুলিশের একজন এসআই আড়ালে থেকে আল আমিনকে শেল্টার দিচ্ছে। তাদের বলয়েই আলামিন সবধরনের অনৈতিক কর্মকান্ড করে বেড়াচ্ছে। তাদের জন্য ছিন্নমূল আলাদা একটা রাজ্য, এখানে তারা যা বলবে তাই হবে। তারা কারও তোয়াক্কা করে না। পথে পথে তাদের প্রহরী থাকে। পুলিশ ছিন্নমূলের রাস্তায় ঢুকলেই তাদের কাছে খবর পৌঁছে যায়।তখন তারা পাহাড়ের জঙ্গলে ভিতর লুকিয়ে থাকে, যার কারণে পুলিশ তাদেরকে খুঁজে পায় না।

এ বিষয়ে মোঃ মঞ্জুর আলম বলেন, আল আমিন ছিন্নমূলের মশিউর রহমানের ভাগিনা পরিচয় দিয়ে চাঁদাবাজি, মারধর, ছিনতাই, নেশাসহ অপকর্ম করে বেড়ায়। তাদের অতিষ্ঠে সাধারন মানুষের জীবন দূর্বিষহ হয়ে উঠেছে। এদের ভয়ে এখানে কেউ মুখ খুলতে পারে না। কেউ কিছু বললে রাতের আঁধারে ছিন্নমূল নিয়ে নির্যাতন করে। তারা আইনের কোন তোয়াক্কা করে না। দেশে আইনের সুশাসন থাকা সত্ত্বেও তাদের কর্মকাণ্ডে আমরা অতিষ্ঠ হয়ে পড়েছি। আমি এ পর্যন্ত কম হলেও ২০ জায়গায় বিচারের জন্য  গিয়েছি। সুজন বড়ুয়া তার পুলিশী প্রভাব খাটিয়ে সব পথ বন্ধ করে দেয়। আলা আমিনকে সামনে শো করে পিছন থেকে সব মেকানিজম করছে সুজন বড়ুয়া। আমি নিরুপায় হয়ে শেষ পর্যন্ত আল আমিন ও এসআই সুজন বড়ুয়ার নামে (৭অক্টোবর) পুলিশ কমিশনার ও র‍্যাব বরাবর লিখিত অভিযোগ দিয়েছি। অভিযোগ দেওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে তারা আরও বেশি বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। গত (১৩অক্টবর) আমার কেয়ারটেকারকে ছুরিকাঘাতে  গরুতর আহত করেন।বায়েজিদ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রিটন সরকারকে বিষয়টি জানলে ভিকটিমকে দেখতে হাসপাতালে কয়েকজন পুলিশ পাঠান। পরে ভিকটিমের অবস্থা আশঙ্কাজনক শুনে রাতের ২টায় তিনি হাসপাতাল গিয়ে তার সিকিৎসা কারান। ঘটনার পরদিন আমি বাদি হয়ে একটা মামলা করেছি। আমি আইনকে শ্রদ্ধা করে থানায় মামলা করেছি। আমি প্রশাসনের নিকট নেয় বিচার দাবি করছি।

এ বিষয়ে অভিযুক্তদের ও বায়েজিদ থানায় ফোন করে কাউকে পাওয়া যায়নি।

সর্বশেষ খবর

আরো খবর

আজকের সংবাদের প্রচারিত কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by SaraBpo