logo

মঙ্গলবার ২১শে জানুয়ারি, ২০২০ - ৮ই মাঘ, ১৪২৬ - ২৫শে জমাদিউল-আউয়াল, ১৪৪১

শিরোনাম

কুড়িগ্রামে মোবাইল নাম্বার ক্লোন করে অর্ধ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে প্রতারক চক্র
২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ

কুড়িগ্রামের উলিপুরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার মোবাইল নাম্বার ক্লোন করে একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানের কাছে ল্যাপটপ দেয়ার কথা বলে প্রায় পঞ্চাশ হাজার টাকা হাতিয়ে নিয়েছে একটি চক্র। এ ঘটনায় উপজেলা নির্বাহী অফিসার থানায় জিডি করেছেন। মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা নির্বাহী অফিসারের সরকারি মোবাইল নাম্বার ও মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার নাম্বার ক্লোন করে শুক্রবার রাতে ও শনিবার (২০ ও ২১ সেপ্টম্বর) সকালে উপজেলার একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধানের কাছে সরকারি ল্যাপটপ দেয়ার কথা বলে প্রতিটি ল্যাপটপের জন্য ৮ হাজার টাকা করে দাবী করে একটি প্রতারক চক্র। শুক্রবার রাতে উমানন্দ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শামছুল হকের কাছে ৮ হাজার ও দূর্গাপুর বাজার দাখিল মাদরাসার প্রধান শিক্ষক আব্দুর ছাত্তারের কাছে ৮ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় ওই চক্রটি। একই কায়দায় উপজেলার মালতিবাড়ী দিগর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আহিদুল ইসলামের কাছে শনিবার সকাল ৭টায় প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক প্রতি একটি করে ল্যাপটপ দেয়ার কথা বলে চার জন শিক্ষকের কাছে বিকাশের (০১৭২৯৬২৩৪৬১) মাধ্যমে ৩২ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয় এবং রবিবার (২২ সেপ্টেম্বর) বিকালে ল্যাপটপ নেয়ার জন্য ইউএনও অফিসে আসতে বলে। উমানন্দ বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাহমুদার রহমান বকুলের কাছে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার নাম্বার ব্যবহার করে ল্যাপটপ দেয়ার জন্য প্রসেসিং ফি বাবদ ৮ হাজার টাকা দাবী করা হয়। একই ঘটনা দূর্গাপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক উৎপল কান্তি সরকারে সাথে ঘটে। পরে বিষয়টি নিয়ে তাদের সন্দেহ হলে ইউএনও ও শিক্ষা কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করে প্রতারনার বিষয়টি বুঝতে পারেন। এ ঘটনায় ইউএনও প্রতারনার বিষয়টি জানতে পেরে শনিবার রাতে উলিপুর থানায় একটি জিডি করেন। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আব্দুর রব ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, প্রতারক চক্রটি ইউএনও স্যার ও আমার মোবাইল নাম্বার ক্লোন করে একাধিক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের কাছে অর্ধলক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) আনোয়ারুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় ইউএনও স্যার থানায় জিডি করেছেন। পরবর্তী কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আব্দুল কাদের বলেন, এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়ার জন্য আইন শৃঙ্খলা বাহিনীকে বলা হয়েছে। পুলিশ এ বিষয়ে তদন্ত করছে। আর কেউ যেন প্রতারিত না হয় সেজন্য সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে সকলকে সর্তকর্তা অবলম্বনের পরামর্শ দেয়া হয়েছে।

সর্বশেষ খবর

আরো খবর

আজকের সংবাদের প্রচারিত কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by GrameenFox