logo

সোমবার ২৬শে আগস্ট, ২০১৯ - ১১ই ভাদ্র, ১৪২৬ - ২৪শে জিলহজ্জ, ১৪৪০

শিরোনাম

উলিপুরে কাঠুরিয়াকে ছেলেধরা মনে করে বেধড়ক পেটালেন স্কুল শিক্ষক
২ আগস্ট, ২০১৯

কুড়িগ্রাম  প্রতিনিধি : উলিপুরের ধামশ্রেণী চৌমহনী বাজার সংলগ্ন পল্লী উন্নয়ন রেসিডেন্সিয়াল স্কুলের শিক্ষক ছেলেধরা মনে করে বেধড়ক পেটালেন এক কাঠুরিয়াকে।
ঘটনাটি ঘটেছে গত বৃহস্পতিবার (০১আগষ্ট) বিকাল চারটায় উলিপুর উপজেলার ধামশ্রেণী ইউনিয়নের চৌমহনী বাজার সংলগ্ন পল্লী উন্নয়ন রেসিডেন্সিয়াল স্কুলে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী জানান, হাতিয়া ইউনিয়নের হাতিয়া ভবেশ মৌজার উচাভিটার আলা উদ্দিন (৫৫) প্রতিদিনের ন্যায় অন্যের গাছ কেটে বাড়ী ফেরার পথে পল্লী উন্নয়ন রেসিডেন্সিয়াল স্কুলের সামনে আসলে ঐ স্কুলের কয়েকজন দুষ্ট শিশু ছাত্র তার ঘাড়ে থাকা গাছ কাটা করাত টানাটানী করে এতে তিনি ক্ষীপ্ত হয়ে ছাত্রের পিছনে ছুটে যান। স্কুলের ভিতরে প্রবেশ করলে স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীরা কাল্লাকাটা লোক বলে চিল্লাহাল্লা করলে আব্দুল মমিন মিয়াসহ অন্যান্য শিক্ষকেরা বেড়িয়ে এসে আলাউদ্দিনকে ধরে ফেলে কিলঘুষি মারতে থাকলে চৌমহনী বাজারের খড়ি ব্যাবসায়িক জমশেদ আলী এগিয়ে এসে থামানোর চেষ্টা করেন। এসময় প্রতিষ্ঠানের প্রধান নজরুল ইসলাম এসে আলা উদ্দিনের পরিচয় জেনে বিষয়টি মিটমাট করে দেন। আলা উদ্দিন স্কুল থেকে বেড়িয়ে কিছুদূর চলে গেলে শিক্ষক আব্দুল মমিনের ছোট ভাই বাচ্চু মিয়া ঘটনাস্থলে এসে ছেলে ধরার কথা শুনে আব্দুল মমিনসহ পুনরায় আলা উদ্দিনকে রশি দিয়ে হাতবেঁধে স্কুলে নিয়ে আসতে এলোপাতারীভাবে কিলঘুষি মারে। এতে আলা উদ্দিন গুরুত্বর আহত হয়। পরে স্থানীয় লোকজন তাকে উদ্ধার করে উলিপুর হাসপাতালে নেয়া হলে ডাক্তার প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে রেফার্ড করেন।
এরেই মধ্যে এলাকায় ছেলেধরা গুজব ছড়িয়ে যায়, পল্লী উন্নয়ন রেসিডেন্সিয়াল স্কুলে ছেলে ধরা মানুষ ধরা পড়েছে। এলাকাবাসী স্কুলে এসে যখন জানতে পারে আলা উদ্দিন কাঠুরিয়া নামের লোককে ছেলেধরা বলে মারপিট করেছে এলাকার লোকজন উত্তেজিত হয়ে শিক্ষক আব্দুল মমিনকে স্কুলে অবরুদ্ব করে রাখে । খবর পেয়ে হাতিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বি,এম আবুল হোসেনসহ পুলিশ ঘটনা স্থলে এসে আব্দুল মমিনকে থানা নিয়ে আসলে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়।
উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সুভাষ চন্দ্র সরকার জানান, আলাউদ্দিনের শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে রাতেই তাকে কুড়িগ্রাম সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে।
উলিপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোয়াজ্জেম হোসেন জানান, গুজব ছড়িয়ে নিরীহ ব্যক্তিকে মারপিট করার ঘটনায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। আটক মমিনকে শুক্রবার বিকালে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

সর্বশেষ খবর

আরো খবর

আজকের সংবাদের প্রচারিত কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by GrameenFox