logo

সোমবার ২৬শে আগস্ট, ২০১৯ - ১১ই ভাদ্র, ১৪২৬ - ২৪শে জিলহজ্জ, ১৪৪০

শিরোনাম

এসিআইয়ের ওষুধে মশা মরে না: সংসদে বাদল
১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭

এসিআই কোম্পানির ওষুধে মশা মরে না বলে অভিযোগ করেছেন জাসদের সংসদ সদস্য মইন উদ্দিন খান বাদল। বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে অনির্ধারিত আলোচনায় অংশ নিয়ে বাদল মশার কামড়ে সারা রাত ঘুমাতে পারেননি উল্লেখ করে বলেন, ‘এসিআই নামে একটি কোম্পানি রয়েছে। মশার ওষুধটা তাদেরই রয়েছে। আমি দেখলাম যতবার ওষুধটা দেই মশা কিছু সময়ের জন্য নির্জীব হয়ে যায়, কিছুক্ষণ পর আবারও কামড়াতে থাকে। পরবর্তীতে শুনলাম আরও অনেকের অভিজ্ঞতা একই রকম। এসিআই খুব নাম করা কোম্পানি তাদের ওষুধের মধ্যে যদি মশা মারার ক্ষমতাই না থাকে, তাহলেতো এই ওষুধ তাদের বাজার থেকে প্রত্যাহার করা উচিত।’সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে তিনি বলেন, ‘এই বিষয়টি হয়তো অনেকের কাছে গুরুত্বপূর্ণ মনে হবে না। কিন্তু সারা রাত জাগনা থাকলে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে যায়। আমি বিষয়টি সংসদের নজরে আনলাম। কিন্তু এখানে শিল্পমন্ত্রীও নেই বাণিজ্যমন্ত্রীও নেই। এই কোম্পানির ওষুধ তারা নিজেরাই পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখতে পারেন।’বক্তব্যের শুরুতে বাদল সংসদ সদস্য রুহুল আমিনের বক্তব্যের প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ‘আমাদের একজন সংসদ সদস্য সব থেকে বড় প্রাণীর কথা বলেছেন। যার কোনও নাগরিকত্ব নেই। আসা যাওয়ায় তাদের কোনও সমস্যা নেই। তবে এসে আমাদের এখানে সমস্যা সৃষ্টি করছেন। তবে আমি বলবো সব থেকে ক্ষুদ্র প্রাণী মশাকে নিয়ে।’
এর আগে কুড়িগ্রাম-৪ আসনের সংসদ সদস্য রুহুল আমিন তার নির্বাচনী এলাকায় বন্য হাতির উৎপাতের কথা তুলে ধরেন। তিনি জানান, তার এলাকায় প্রতি সন্ধ্যায় ৭০/৮০টি হাতি নেমে আসে। হাতি এলে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষী বাহিনী বিএসএফ তাদের গেট খুলে দেয়। এতে হাতিগুলো বাংলাদেশে প্রবেশ করে ফসলের ক্ষতি ও ঘরবাড়ি ভাঙচুর করে। আমি তাণ্ডবলীলা দেখেছি। এলাকার মানুষ আতঙ্কে রয়েছেন।এ সময় তিনি হাতির আক্রমনে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দিতে সরকারের কাছে দাবি জানান জাতীয় পার্টির নূরুল ইসলাম মিলন সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে কথা বলেন। পত্রিকায় প্রকাশিত খবরের উদ্বৃতি দিয়ে তিনি বলেন, ‘পত্রিকায় দেখলাম একদিনে সড়ক দুর্ঘটনায় ৫০ জন নিহত হয়েছে। তারপর দিন আবারও ২৫ জন। আমি জানতে চাই, দেশে কি কোনও আইন নেই। ঢাকা থেকে কুমিল্লা যাওয়ার সময় দেখি গাড়িগুলো এমনভাবে ওভারটেক করে, যেন এখনই দুর্ঘটনা ঘটে যাবে। জীবনের কোনও নিশ্চয়তা নেই। সারা বাংলাদেশে একই অবস্থা।’ সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আর্কষণ করে তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশে আইন রয়েছে। জাতীয় পার্টির সরকারের সময় সড়ক দুর্ঘটনার জন্য ফাঁসির বিধান রেখে আইন করা হয়েছিল। কিন্তু অনেক আন্দোলন করে তা বাতিল করে দেওয়া হয়েছে। সরকারের দুজন মন্ত্রী রয়েছেন, তারা চালকদের সভাপতি ও সম্পাদক। তারা কি এদিকে দৃষ্টি দেবেন না? আইন সংস্কার হওয়া দরকার।’সরকার দলের উম্মে রাজিয়া কাজল সংসদ সদস্য ভবন থেকে সংসদ ভবনসহ অন্যান্য স্থানে যাতায়াতের জন্য স্থায়ী ট্রাফিক নিয়োগের দাবি জানান।বিএনএফ এর সংসদ সদস্য এস এম আবুল কালাম আজাদ তিস্তা চুক্তি প্রসঙ্গ টেনে বলেন, ‘তিস্তার পানিতো আমরা পাইনি। ভারতের দুজন প্রধানমন্ত্রী পরিবর্তন হলেও তিস্তা ব্যারেজের কোনও চুক্তি হয়নি। ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার গঙ্গা ব্যারেজ নির্মাণের সহযোগিতায় এগিয়ে এলেও মমতা ব্যানার্জির মমতা হয়নি। ’এছাড়া আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী বিদেশে কর্মসংস্থানের নামে নারী পাচারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি করেন। একই সঙ্গে তিনি ৩৫ বছরের আগে কোনও নারী কর্মী যাতে বিদেশ যেতে পারেন, সে বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান।

সর্বশেষ খবর

আরো খবর

আজকের সংবাদের প্রচারিত কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by GrameenFox