logo

শনিবার ২৫শে মে, ২০১৯ - ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ - ১৯শে রমযান, ১৪৪০

শিরোনাম

মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ উপেক্ষা করে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) সুপ্তশ্রী সাহা অনুপস্থিত।
৩ মে, ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক :: সুপার সাইক্লোনে রুপ নেয়া ঘূর্ণিঝড় ” ফণী ” বাংলাদেশ ছেড়ে চলে না যাওয়া পর্যন্ত সরকারের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারী,জেলা ত্রান কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাগনদের কর্মস্থল ছেড়ে না যাওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।পাহাড়ি ও উপকুলবর্তী এলাকায় ঝুঁকির মধ্যে বসবাসকারীদের নিরাপদস্থানে নিয়ে এসে আশ্রয় দেয়ার ও ঘোষনা দেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী । অথচ মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ উপেক্ষা করে চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) সুপ্তশ্রী সাহা গত ২ মে ২০১৯ ইং বৃহস্পতিবার রাত থেকে আজ ৩ মে ২০১৯ ইং শুক্রবার দুপুর দেড়টা পর্যন্ত কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছেন। চট্টগ্রাম বিভাগীয় ও জেলা প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’র ক্ষয়-ক্ষতি মোকাবেলা, মানুষকে নিরাপদ আশ্রয়ে রাখতে নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।সর্বদা প্রস্তুত রয়েছেন চট্টগ্রামের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মো: দেলোয়ার হোসেনসহ জেলা প্রশাসনের পদস্থ কর্মকর্তা-কর্মচারীরা। পাশাপাশি খাবার সামগ্রী,ডাক্তারসহ ওষুধ সামগ্রী মজুদ রাখা হয়েছে।আর বোয়ালখালীর পিআইও সুপ্তশ্রী সাহা চট্টগ্রাম শহরের নন্দনকাননস্থ বাসায় ঘুমাচ্ছেন।চট্টগ্রামে অব্যাহত রয়েছে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত। তিনি(সুপ্তশ্রী সাহা) অফিস সহকারীদের বলে রেখেছেন “আমার ব্যাপারে কেউ ফোন করলে বলবেন,আমি বোয়ালখালী উপজেলা সদরের বাসায় আছি “।এ বিষয়টি অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার(উন্নয়ন)জনাব মো: নুরুল আলম নিজামী,চট্টগ্রামের ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক জনাব মো: দেলোয়ার হোসেন, জেলা ত্রান কর্মকর্তা জনাব আবুল কালাম আজাদ ও বোয়ালখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ভারপ্রাপ্ত)জনাব একরামুল সিদ্দিক মহোদয়কে জানানো হয়েছে।তাঁরা বিষয়টি খতিয়ে দেখে সত্যতা পেয়েছেন বলে জানান।উল্লেখ্য যে-সুপ্তশ্রী সাহা গত ২৮ নভেম্বর ২০১৮ ইং তারিখে বোয়ালখালী উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন।এর আগে তিনি ব্রাহ্মনবাড়ীয়ার আশুগঞ্জ উপজেলা, রাঙ্গামাটির রাজস্থলী উপজেলা ও কাপ্তাই উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা ছিলেন।চট্টগ্রাম জেলা ত্রান কর্মকর্তার কার্যালয়ে ও চাকুরী করেন সুপ্তশ্রী সাহা।বোয়ালখালীতে তিনি যোগদানের পর সেখানে সরকারী বাসা থাকা সত্বেও শহরের বাসা থেকে যাওয়া-আসা করে সপ্তাহে মাত্র ৩/৪দিন অফিস করেন বলে প্রাপ্ত তথ্যে প্রকাশ।অফিসের হাজিরা খাতায় ও স্বাক্ষর করেন না,যা প্রমান রয়েছে।অফিস কলিগদের সাথে সবসময় চিৎকার করে উচ্চস্বরে কথা বলেন এই কর্মকর্তা।এছাড়া প্রকল্প থেকে কমিশন না পেলে প্রকল্পের সভাপতি/সম্পাদকের সাথে দুর্ব্যবহার ও করেন বলে অভিযোগ রয়েছে পিআইও সুপ্তশ্রীর বিরুদ্ধে।তিনি বোয়ালখালীর পাশাপাশি পার্শ্ববর্তী কর্ণফুলী/পটিয়া উপজেলা প্রক্ল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা হিসেবে অতিরিক্ত দায়িত্ব নিতে সচিবালয়/মন্ত্রনালয়ে তদবীর চালিয়ে যাচ্ছেন বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে।

সর্বশেষ খবর

আরো খবর

আজকের সংবাদের প্রচারিত কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ

Developed by GrameenFox